শিওর ক্যাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

এক জায়গা থেকে অন্য জায়গার মধ্যে টাকা প্রেরণ করার জন্য এখন সবচাইতে বেশি ব্যবহৃত হয়ে থাকে মোবাইল ব্যাংকিং। ঠিক তেমনি মোবাইল ব্যাংকিং এর অন্যতম ঊর্ধ্বতম স্থানে রয়েছে শিওর ক্যাশ মোবাইল ব্যাংকিং।

আগেকার সময়ে মানুষ টাকা মোবাইলের মধ্যে সংরক্ষিত রাখার সুযোগটা পেত না। কিন্তু এখন যুগ পরিবর্তন হওয়ার কারণেই আমরা সেই সুবিধাটা উপভোগ করতে পারতেছি।

মূলত অনেক সময় আগে মানুষ টাকা জমা রাখত তাদের কোন এক মহাজন ব্যক্তির কাছে। ঠিক ধীরে ধীরে চলে আসলো আমাদের টাকা সংরক্ষিত থাকার জন্য ব্যাংকিং সেবা। যার কারণে মানুষের টাকা সুরক্ষিত রাখার ব্যবস্থাটা হয়ে উঠল এক অনন্য পর্যায়ে।

ব্যাংক আস্তে আস্তে এমন এক পর্যায়ে চলে গিয়েছিল যে মানুষ সম্পূর্ণরূপে আস্থা রাখতো ব্যাংকের উপর। এমনকি আপনি ব্যাংকে আস্থার প্রতিক ও বলতে পারেন। যার কারণে লোকজন আস্তে আস্তে ব্যাংকের দিকে ধাবিত হলো এবং সেখানে টাকা লেনদেন করা শুরু করল।

শিওর ক্যাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম
শিওর ক্যাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম


আরো পড়ুনঃ শিওর ক্যাশ কোড | sure cash code 2022

যেহেতু ব্যাংকিং লেনদেন যেগুলো রয়েছে সেগুলো দীর্ঘমেয়াদি এবং যেকোনো সময় টাকা তুলতে চাইলেই যে কোন জায়গাতেই তুলতে পারে না। যার কারণে মানুষের কাছে এক কষ্ট কাজ করতেছিল। মানুষের সেই কষ্ট কে কাটাতে নিয়ে এসেছে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা

আপনি যদি বলেন তাহলে প্রযুক্তিকে মানুষের আশীর্বাদ স্বরূপ বলতে পারেন। প্রযুক্তি এমন এক কার্যক্রম যেটা কিনা মানুষের দৈনন্দিন কাজকে নিয়ে গেছে এক অনন্য উচ্চতায়। সমস্ত কাজ হয়ে গেছে প্রযুক্তির কারণে এখন পানির মত।

যখন মোবাইল ব্যাংকিং সেবা কিংবা ব্যাংকিং লেনদেন সমূহ এভেলেবেল ছিল না তখনকার সময়ে মানুষ একজন অন্যজনের কাছে টাকা পাঠাতো কোন এক ব্যক্তির মাধ্যমে। যার কারণে যে ব্যক্তির কাছে টাকা পাঠাচ্ছে তার টাকার প্রয়োজন প্রায় শেষ।

সেই সব সমস্যার সমাধানের জন্য চলে এসেছে আমাদের মাঝে প্রযুক্তির দারাই ব্যাংকিং সেবা। কিন্তু আমাদের দৈনন্দিন জীবনের লেনদেন সমূহ আরো সহজ করে তুলতে চলে এসেছে মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট সেবা। ঠিক তেমনি এক মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট এর নাম হচ্ছে শিওর ক্যাশ।

আরো পড়ুনঃ 

শিওর ক্যাশ কি?

শিওর ক্যাশ হচ্ছে বিকাশ, নগদ ইত্যাদির মত মোবাইল ব্যাংকিং সেবা যেটা দিয়ে আপনি দেশের এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় অনায়াসে খুব দ্রুত টাকা পাঠাতে পারবেন। এমনকি আপনি এমন বিদেশেও টাকা পাঠাতে পারবেন যেখানে কিনা এই শিওর ক্যাশ মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্টে কাজ করে কিংবা সেবা চালিত।

দিন যত যাচ্ছে তত আমাদের বাংলাদেশের মধ্যে মোবাইল ব্যাংকিং কোম্পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে ঠিক তেমনি এই শিওর ক্যাশ হচ্ছে সবচেয়ে একটি নতুন মোবাইল ব্যাংকিং সেবা বাংলাদেশের জন্য।

কমবেশি আমরা সকলেই জানি এবং আমরা অনেকেই আমাদের প্রয়োজন মিটাতে বেশিরভাগ সময় বিকাশ মোবাইল ব্যাংকিং সেবাটি ইউজ করে থাকি।

কিন্তু শিওর ক্যাশ এই মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট টির গ্রাহক এখন প্রায় দুই কোটির কাছাকাছি রয়েছে। যেহেতু এই সেবাটি এখনো নতুন চালু হয়েছে তবুও এর গ্রাহক কিন্তু অনেক বেশি।

বিশেষ করে এই মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট এর মধ্যে অনেক ফিউচার রয়েছে যেমনঃ ইউটিলিটি বিল পরিশোধ, সেন্ড মানি এবং মোবাইল রিচার্জ সহ আরো নানা ফিচার।

তাছাড়া আপনাকে যদি কোন সময় এডুকেশন পেমেন্ট করার প্রয়োজন পড়ে তাহলেও এই মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট এর মাধ্যমেই খুব সহজেই পেমেন্টটা করে নিতে পারবেন।

শিওর ক্যাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

শিওর ক্যাশ এটি হচ্ছে তাদের প্রতিষ্ঠানের একটি ডিজিটাল সেবা। যে সবার মাধ্যমে মূলত বিশ্বের যেকোন জায়গা থেকে অন্য জায়গায় টাকা পাঠাতে পারবে খুব সহজে। কোন ঝামেলা ছাড়াই আপনাদের যদি সিওর ক্যাশ একাউন্টটি available থাকে তাহলে আপনি খুব দ্রুত টাকা পাঠাতে পারবেন আপনার প্রিয়জন কিংবা বন্ধু-বান্ধবকে।

বলতে গেলে প্রায় প্রত্যেক ধরনের গ্রাহক সেবা এবং তাদের মান উন্নয়নের যতটুকু রয়েছে প্রায় সবগুলি পেয়ে যাবেন তাদের এই ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে।

অবশ্যই ইতিমধ্যেই আপনি যদি এই একাউন্টটা খুলে থাকেন তাহলে অবশ্যই বুঝতে পারবেন শিওর ক্যাশ এর মধ্যে কি কি রয়েছে। কি কি ফিচার আপনি উপভোগ করতে পারবেন কোন ঝামেলা ছাড়াই।

কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেক লোক এমন আছে যে যারা কিনা এই অ্যাকাউন্টের সুযোগ সুবিধা সম্পর্কে অবগত কিন্তু কিভাবে একাউন্ট খুলতে হয় সে বিষয়টা জানে না।

তোমরা তো সেইসব মানুষদের উদ্দেশ্য করে আজকের এই আর্টিকেলটি লেখা হয়েছে যেখানে মূলত আমি আপনাদের সাথে সুন্দর এবং বিস্তারিতভাবে বলার চেষ্টা করব শিওর ক্যাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে।

আপনি যদি শিওর ক্যাশ একাউন্ট খুলতে চান তাহলে দুইটি পদ্ধতি অবলম্বন করে তুলতে পারেন

  1. সরাসরি ঘরে বসে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে
  2. শিওর ক্যাশ এর কোন একটা এজেন্ট পয়েন্টে যোগাযোগ করার মাধ্যম

তাই আপনাদের সুবিধার কথা চিন্তা করে আমি উপরে যে দুইটি পদ্ধতি আপনাদের সাথে শেয়ার করেছি। অর্থাৎ আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করেছিলাম দুটি পদ্ধতি অবলম্বন করে আপনি শিওর ক্যাশ একাউন্ট ক্রিয়েট করতে পারবেন।

সুতরাং আমি নিচে আপনাদের সুবিধার্থে এই দুটি পদ্ধতিতে কিভাবে আপনি আপনার কাঙ্খিত শিওর ক্যাশ একাউন্টটি খুব সহজেই নিমিষেই অ্যাকাউন্টটি ক্রিয়েট করতে পারেন সেই সব বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো।

আরো পড়ুনঃ নগদ একাউন্ট দেখার কোড | নগদ উপবৃত্তির টাকা দেখার নিয়ম

মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে শিওর ক্যাশ একাউন্ট খোলার উপায়

  • আপনাকে সর্বপ্রথম আপনি যদি অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে শিওর ক্যাশ একাউন্ট ক্রিয়েট করতে চান তাহলে আপনাকে তাদের যে অফিসিয়ালি অ্যাপস টা রয়েছে সেটা ডাউনলোড করতে হবে। তার জন্য আপনি গুগল প্লে স্টোরে গিয়ে শিওর ক্যাশ লিখলেই আপনার সামনে সর্বপ্রথম চলে আসবে। তো আপনি সেখানে থেকে এখনই ডাউনলোড করেন অ্যাপ্লিকেশন টা।
  • এখন আপনাকে শিওর ক্যাশ অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করার পর সেখানে প্রবেশ করতে হবে। কেননা আপনি আপনার একাউন্টা ক্রিয়েট করবেন সেই অ্যাপসের মধ্যেই।
  • অ্যাপ্লিকেশন টা ওপেন করার পরে আপনাকে সর্বপ্রথম আপনি যে মোবাইল নাম্বারে একাউন্টটা ক্রিয়েট করতে চাচ্ছেন সেটা বসাবেন। অবশ্যই সেই মোবাইল নাম্বারটা সচল হতে হবে। তবে আপনার মোবাইল নাম্বারটা যদি রেজিস্ট্রেশন যে এনআইডি কার্ড টা দিয়ে শিওর ক্যাশ একাউন্ট ক্রিয়েট করবেন সেটা হয় তাহলে ভালো।
  • তারপর আপনার এনআইডি কার্ডের দুই পাশের অর্থাৎ উভয় পার্শ্বের ছবি আপলোড করতে হবে কিংবা তুলে দিতে হবে।
  • তারপর সেখানে যে সমস্ত তথ্য আপনার থেকে যাওয়া হবে সেগুলো ভালোভাবে ফিলাপ করে দিন (যদি চাওয়া হয়)।
  • তারপর আপনি যে এনআইডি কার্ডটা দিয়ে শিওর ক্যাশ একাউন্টটা ক্রিয়েট করতে চান তার ছবিটা সরাসরি ভেরিফাই করার জন্য তুলতে হবে।
  • সর্বশেষ আপনাকে একটি গোপনীয় পিন সেট করতে হবে। অবশ্যই শক্তিশালী একটি পিন দেওয়ার চেষ্টা করবেন। যদি খুব সহজ হয় তাহলে আপনার একাউন্টটা ক্রিয়েট নাও হতে পারে।

আপনি যদি উপরে দেওয়া স্টেপ গুলো ভালোভাবে ফলো করে আপনার শিওর ক্যাশ একাউন্ট করার চেষ্টা করেন তাহলে আশা করি খুব সহজেই নিজের ঘরে বসে অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে আপনার একাউন্টটা ক্রিয়েট করে নিতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ আজওয়া খেজুর চেনার উপায় | ভালো খেজুর চেনার ৫ টি উপায়

সরাসরি এজেন্টের কাছে গিয়ে শিওর ক্যাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

আপনার কাছে যদি স্মার্টফোন বিদ্যমান না থাকে এবং ছোট একটা বাটন মোবাইল থাকে তাহলে আপনিও একজন শিওর ক্যাশের গ্রাহক হতে পারবেন।

অর্থাৎ আপনিও চাইলে আপনার সিমের মধ্যে শিওর ক্যাশ মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টটা ক্রিয়েট করে নিতে পারবেন তবে ভিন্ন আরেকটা পদ্ধতি অবলম্বন করে।

আপনার কাজে যদি স্মার্টফোন না থাকে তাহলে আপনাকে যে ভিন্ন পদ্ধতিতে অবলম্বন করতে হবে সেটা হচ্ছে এজেন্ট এর কাছে গিয়ে তাদের কাছ থেকে খুলে নেওয়া।

তো আপনিও যদি একজন শিওর ক্যাশ একাউন্টের গ্রাহক হতে চান এবং একাউন্টটা ক্রিয়েট করতে চান তাহলে আপনি অন্য আরেকটি উপায় অর্থাৎ এজেন্টের কাছে গিয়ে ক্রিয়েট করতে পারেন।

সুতরাং আপনি যদি সরাসরি এজেন্টের কাছে গিয়ে আপনার কাঙ্খিত অ্যাকাউন্টটি ক্রিয়েট করতে চান তাহলে আপনাকে নিচের দেওয়া স্টেপ গুলো ভালোভাবে ফলো করে কাজটা করে নিতে হবে। তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক।

  • যেহেতু আপনি এজেন্টের মাধ্যমে আপনার শিওর ক্যাশ একাউন্টটি খুলবেন তাই আপনাকে সর্বপ্রথম কোন একটা এজেন্ট এর কাছে যেতে হবে। তার জন্য আপনার আশেপাশের কোন একটা বাজারে গিয়ে খোঁজ করতে পারেন। অথবা এমন একটা লোক থেকে জিজ্ঞেস করতে পারেন যে কিনা মোবাইল ব্যাংকিং সেবা সম্পর্কে ধারণা রাখে।
  • এজেন্ট এর কাছে গিয়ে আপনাকে সর্ব প্রথম যে জিনিসটা জমা দিতে হবে সেটা হচ্ছে আপনার জন্ম নিবন্ধন (দিতে নাও হতে পারে) যদি দিতে হয় তাহলে ফটোকপি একটা সংগ্রহ করে নিবেন।
  • এজেন্ট আপনাকে একটা ফোন দিবে যেটা কিনা আপনাকে খুব ভালোভাবে ফিলাপ করতে হবে। এমনভাবে ফিলাপ করতে হবে যেন সেখানে কোন একটা বাদ না যায় এবং কোন প্রকারের ভুল না হয়।
  • শিওর ক্যাশ এর মধ্যে আপনি সমস্ত ডিটেইলস ভালোভাবে ফিলাপ করার পর আপনার দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি ফর্ম এর সাথে লাগিয়ে দিতে হবে।
  • আপনার ডিটেলস এর মধ্যে যদি কোন প্রকার ভুল থাকে এবং অসম্পূর্ণ থেকে যায় আশা করি সেটা এজেন্ট দেখিয়ে দিবে কিংবা সরাসরি এজেন্ট পূরণ করে ফেলবে।
  • চার অক্ষরের আপনার গোপনীয় পিনটি দেওয়ার পরে আপনার কাঙ্খিত শিওর ক্যাশ একাউন্টটি ক্রিয়েট করে ফেলতে পারবেন।

বিঃদ্রঃ আপনি যদি প্রতারণার হাত থেকে বাঁচতে চান তাহলে আপনাকে সর্বপ্রথম যে বিষয়টি লক্ষ্য করতে হবে সেটা হচ্ছে আপনার গোপনীয় পিন নাম্বারটি। কেননা যে কেউ চাইলে আপনার পিন নাম্বারের মাধ্যমে আপনার একাউন্টের সমস্ত টাকা তুলে নিতে পারবে। তোর সাবধান থাকবেন কাউকে যেন আপনার পিন টা শেয়ার না করেন।

শিওর ক্যাশ কোড নাম্বার 

শিওর ক্যাশ কোড নাম্বার আমাদেরকে তখনই বেশি প্রয়োজন পড়ে যখন আমাদের কাছে বিশেষ করে স্মার্টফোন না থাকে। এবং স্মার্টফোন টাকার সত্বেও আমাদের সিমের মধ্যে ইন্টারনেট ব্যালেন্স কিংবা ওয়াইফাই অ্যাভেলেবেল না থাকে।

যার জন্য আমাদেরকে অবশ্যই শিওর ক্যাশ কোড নাম্বার দিয়ে আমাদের সমস্ত লেনদেন কে কমপ্লিট করতে হয়। এবং আমাদের একাউন্টের যাবতীয় ইনফরমেশন গুলো চেক করতে হয়।

অর্থাৎ আপনি খুব সহজেই শুধুমাত্র শিওর ক্যাশ কোড নাম্বারটা টাইপ করার মাধ্যমেই আপনার যাবতীয় একাউন্টের কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারবেন।

তাই আমাদেরকে অবশ্যই সেই কোড নাম্বারটা কি যেটাকে আমরা অন্য ভাষায় অর্থাৎ অন্য শব্দে ইউএসএসডি বলে থাকি। তাহলে চলুন সেই ইউএসএসডি কোড সম্পর্কে একটু জেনে নেয়া যাক।

আপনি যদি শিওর ক্যাশের যাবতীয় তথ্য ইউএসএসডি কোড ডায়াল করার মাধ্যমে চেক করতে চান তাহলে সর্বপ্রথম আপনার ফোনের ডায়াল পেটে গিয়ে ডায়াল করতে হবে *৪৯৫#

এই কোডটি ডায়াল করার ফলে আপনার যেই সিমের মধ্যে শিওর ক্যাশ একাউন্টটা রয়েছে সেখানে ডায়াল করার পরে আপনার অ্যাকাউন্টের মেইন মেন মেনু টা আপনার সামনে চলে আসবে।

তো বিস্তারিতভাবে জানার জন্য আমি এর আগে এই সম্পর্কে অন্য আরেকটি আর্টিকেল পাবলিশ করেছিলাম আপনাদের সুবিধার্থে। তো আপনি এখানে ক্লিক করে সেটা আরো ভালোভাবে জানার জন্য চলে যেতে পারেন আর্টিকেলের পড়ার জন্য।

আরো পড়ুনঃ

শিওর ক্যাশ হেল্পলাইন নাম্বার

আমাদের ইচ্ছে অনেক সময় আমাদের একাউন্টের বিভিন্ন সমস্যার কারণে কিংবা তাদের অন্যান্য ফিউচার সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য তাদের সাথে যোগাযোগ করতে হয়।

তো আপনি যদি কোন সমস্যার সম্মুখীন হন এবং আপনাকে তাদের সাথে যোগাযোগ করতে হয় তাহলে সবচেয়ে যে সহজ পদ্ধতি রয়েছে সেটা হচ্ছে কল করে তাদের সাথে যোগাযোগ কিংবা কন্টাক্ট করা।

আপনি যদি তাদের সাথে যোগাযোগ করতে চান তাহলে ০৯ ৬১৪ ০১৬৪৯৫ এই নাম্বারটি আপনার সিম থেকে কল করে যোগাযোগ করতে পারেন। তবে আপনার যে সিমের মধ্যে একাউন্টটি রয়েছে শিওর ক্যাশ একাউন্ট সেখান থেকে কল করলেই ভালো।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url