Advertise

জন্ম সংশোধন অনলাইনে আবেদন।

জন্ম সংশোধন অনলাইনে আবেদন।

জন্ম সংশোধন অনলাইনে আবেদন।আপনি কি চিন্তা করতেছেন আমার জন্ম নিবন্ধন ভুল রয়েছে সেটা কিভাবে সংশোধন করব। চিন্তার কোন কারণ নেই কারণ আপনি খুব সহজেই আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে পারবেন। শুধুমাত্র আপনি ঘরে বসেই অনলাইনে মাধ্যমে আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের জন্য আবেদন করতে পারবেন। জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের সমস্ত তথ্য নিয়ে এসেছি আজকের এই আর্টিকেল। তাই আজকের আর্টিকেলটি এখান থেকে শেষ পর্যন্ত দেখুন। কেননা আজকেরে আর্টিকেলে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব জন্ম নিবন্ধন সংশোধন অনলাইন আবেদন। তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে কত টাকা লাগে। জন্ম নিবন্ধন সংশোধন ফি কত।

সরকার কর্তৃক জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের ক্ষেত্রে আপনার টাকা লাগবে অর্থাৎ যেটাকে আমরা ফি বলে থাকি। এখানে আপনার সংশোধনের ক্ষেত্রভেদে ফির পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়েছে। যেগুলো কিনা আমি আপনাদের সুবিধার্থে নিচে বিস্তারিত বর্ণনা করেছি।

  • আপনি যদি আপনার জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন করতে চান সেক্ষেত্রে আপনার খরচ পড়বে 100 টাকা।
  • আপনার নাম আপনার পিতার নাম আপনার মাতার নাম এমনকি আপনার ঠিকানা পর্যন্ত পরিবর্তন বা সংশোধন করার জন্য আপনার প্রয়োজন হবে 50 টাকা।
  • আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের পর সেটা বাংলা হোক কিংবা ইংরেজি উভয় ক্ষেত্রে আপনার কোন প্রকার খরচ প্রযোজ্য হবে না।
  • বাংলা হোক ইংরেজি আপনি যদি আপনার জন্ম নিবন্ধনের নকল কপি সংগ্রহ করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনার খরচ পড়বে 50 টাকা।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধনী বিল সম্পর্কে আপনার একটা বিষয় খেয়াল রাখতে হবে সেটি হচ্ছে বিভিন্ন জন্ম নিবন্ধন সনদ সংশোধনের কার্যালয়ের বিভিন্ন ফি নেওয়া হয়। আপনি একটি জন্ম সনদ সংশোধন করেন সেক্ষেত্রে হয়তো আপনার 400 থেকে 500 টাকা পর্যন্ত খরচ পড়তে পারে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র।

আপনি যদি আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনার ক্ষেত্রভেদে বিভিন্ন এই জন্য কাগজপত্র জমা দিতে হবে কিংবা সাবমিট করতে হবে। অর্থাৎ আপনি যদি আপনার নাম সংশোধন করতে চান সে ক্ষেত্রে ভিন্ন রকম এবং আপনি যদি আপনার জন্ম তারিখ ইত্যাদি পরিবর্তন করতে চান সে ক্ষেত্রে অন্য রকম তথ্য সাবমিট করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন বয়স সংশোধন করতে কি কি লাগে।

আপনি যদি আপনার জন্ম নিবন্ধনের বয়স সংশোধন করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনি খুব সহজে ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে করতে পারবে। সে ক্ষেত্রে 15 কার্যদিবসের মধ্যে আপনার আবেদনটি গ্রহণ করে সংশোধন করে দেয়া হবে।

তাই আপনি যদি আপনার জন্ম নিবন্ধন এর বয়স সংশোধন করতে চান তাহলে আপনার প্রয়োজন হবে আপনার টিকার কার্ড, এনআইডি, পাসপোর্ট কিংবা ড্রাইভিং লাইসেন্স ইত্যাদি। এ সমস্ত তথ্য দেওয়ার পর আপনার আবেদনটি গ্রহণ যোগ্য বলে গণ্য হবে।

জন্ম নিবন্ধন নাম সংশোধন করার ক্ষেত্রে কি কি প্রয়োজন।

আপনি যদি আপনার জন্ম নিবন্ধনের নাম সংশোধন সে ক্ষেত্রে খুব সহজেই অনলাইনে আবেদন করতে হবে। এবং আপনার আবেদনটি 15 কার্যদিবসের মধ্যে গ্রহণ করা হবে এবং সংশোধন করে দেয়ার চেষ্টা করা হবে।

সেক্ষেত্রে আপনার বয়সের ক্ষেত্রভেদে আপনার বিভিন্ন ডকুমেন্টস সাবমিট করার প্রয়োজন হবে। যেমন আপনি যদি আপনার নাম পরিবর্তন করতে চান তাহলে টিকার কার্ড, ড্রাইভিং লাইসেন্স, এনআইডি ইত্যাদি। এই তথ্যগুলো যদি আপনি সঠিকভাবে সাবমিট করতে পারেন তাহলে আপনার আবেদনটি গ্রহণ যোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

জন্ম নিবন্ধন এর পিতা মাতার নাম সংশোধন করতে কি কি প্রয়োজন।

আপনি যদি আপনার জন্ম নিবন্ধন এর মধ্যে আপনার পিতা-মাতার কোন একজন কিংবা দুইজন এর নাম পরিবর্তন করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনার ক্ষেত্রভেদে কঠিন বা সহজ হবে। আপনি যদি আপনার জন্ম নিবন্ধন এর ফিতা কিংবা মা এর নাম পরিবর্তন করতে চান সে ক্ষেত্রে বিভিন্ন পরিস্থিতিতে বিভিন্ন নিয়ম অনুযায়ী আপনাকে কাজটা কমপ্লিট করতে হবে। তো আপনি আপনার পিতা-মাতার নাম পরিবর্তন করার জন্য নিচের ধাপগুলো ক্ষেত্রভেদে অনুসরণ করুন।

যদি পিতা/মাতার জন্ম নিবন্ধন থাকে।জন্ম সংশোধন অনলাইনে আবেদন।

১ম ধাপঃ যদি আপনার মাতা কিংবা পিতার ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন কিংবা অনলাইন জন্ম নিবন্ধন থাকে তাহলে সর্বপ্রথম আপনাকে চেক করতে হবে আপনার মা বাবার জন্ম নিবন্ধন ঠিক আছে কিনা। যদি ঠিক থাকে তাহলে তো ভালোই যদি ঠিক না থাকে তাহলে অবশ্যই আপনাকে সর্বপ্রথম সেগুলো ঠিক করতে হবে। যদি মা/বাবার জন্ম নিবন্ধন ঠিক থাকে তাহলে আপনার জন্মদিন দিনটি আবার পুনরায় ঠিক করতে হবে না।

২য় ধাপঃ জন্ম নিবন্ধন করার সময় আপনার মা-বাবার জন্ম নিবন্ধন নাম্বার দিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে সংক্রিয়ভাবে আপনার জন্ম নিবন্ধনে আপনার মা-বাবার সংশোধিত নাম দেখাবে। তারপর আপনার জন্ম নিবন্ধন টি পুনঃমুদ্রণ করার আবেদন করার পর মুদ্রণ করে নিলেই যথেষ্ট।

আর যদি আপনার জন্ম নিবন্ধন করার সময় পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন এর রেজিস্ট্রেশন নাম্বার না দিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বর এর সাথে আপনার পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন এর নাম্বার ম্যাপ করতে হবে। ম্যাথ করার পর যদি আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন টি পুনরায় মুদ্রন করেন সেক্ষেত্রে আপনার সংশোধিত নামটি দেখাবে।

পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন না থাকলে করণীয় কি।

আপনার যদি পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন না থাকে তাহলে আপনি দুই ধরনের আবেদন করতে পারবেন এক নাম্বার হচ্ছেঃ যদি আপনার মা-বাবা থেকে কোন একজন বা দুই জনই মারা যায়। দুই নাম্বার হচ্ছেঃ যদি আপনার মা-বাবা থাকে অর্থাৎ মারা না যায়। এইচডি অবস্থার পরিপেক্ষিতে দুই ধরনের আবেদন করা যাবে।

পিতা-মাতা জীবিত হলে করণীয় কি।

১ম ধাপঃ যদি আপনার পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন করা না থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে যদি আপনার জন্ম 1 তারিখ 1 মাস 2001 সাল এর পর হয় তাহলে সে ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনার পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন আগে করাতে হবে।

২য় ধাপঃ আপনার পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন করার পর আপনার জন্ম নিবন্ধন এর সাথে তাদের জন্ম নিবন্ধন ম্যাপ করতে হবে। ম্যাপ করার পর যখন আপনার জন্ম নিবন্ধনটি ফোনের ওপেন করবেন তাহলে আপনার সংশোধিত নামটি দেখাবে ‌ অর্থাৎ যে নামটা আপনি পরিবর্তন করেছিলেন।

আর আপনার জন্য যদি 1 তারিখ 1 মাস 2001 সালের আগে হয়ে থাকে তাহলে সেক্ষেত্রে আপনার মা বাবার জন্ম নিবন্ধন এর প্রয়োজন হবে না। শুধুমাত্র আপনার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সাবমিট করলেই হয়ে যাবে। অর্থাৎ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সাবমিট করার পর আপনার জন্ম নিবন্ধন পুনরায় প্রিন্ট করলে সংশোধিত নামটি দেখাবে।

পিতা-মাতা মৃত হলে করণীয় কি।

আর বিশেষ করে আপনার পিতা-মাতা যদি মৃত হয় এবং আপনার জন্মসাল যদি 1 তারিখ 1 মাস 2001 সালের পরে হয়ে থাকে সে ক্ষেত্রে সরাসরি আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার পর আপনার মা বাবার নাম পরিবর্তন করতে পারবেন। এখানে আরেকটি প্রয়োজনীয় বিষয় হচ্ছে আপনার মা-বাবা যে মারা গেছে সেটার ডকুমেন্ট লাগবে অর্থাৎ মৃত্যু সার্টিফিকেট।

তবে আশা করি এখন অনলাইনে এ সমস্ত আবেদন গ্রহণ করা হচ্ছে না। তাই আপনাকে আপনার মা-বাবা মৃত হলে অবশ্যই আপনার ইউনিয়ন পরিষদ পৌরসভা ইত্যাদিতে যোগাযোগ করে সংশোধন করতে হবে।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url