মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট ২০২৩

আজকের আর্টিকেল থেকে আপনারা জানতে পারবেন মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট কিভাবে করতে পারবেন। তাই আপনি যদি অনলাইনে ইনকাম করে বিকাশে পেমেন্ট নিতে চান তাহলে আর্টিকেলটি আপনার জন্য। কেননা আজকের এই আর্টিকেলের বিস্তারিত শেয়ার করা হবে অনলাইনে ইনকাম করে কিভাবে বিকাশে পেমেন্ট পাওয়া যায়। আসলেই কি অনলাইনে ইনকাম করে বিকাশে পেমেন্ট পাওয়া যায় নাকি এগুলো সব ভুয়া। তাহলে চলুন বন্ধুরা শুরু করা যাক।

অনলাইনে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট।Payment to develop money online. online earnings and Bkash payment

বর্তমান অসমের যোগ্য হচ্ছে একটি তথ্য প্রযুক্তির যুগ তাই সবাই নিজের ঘরে বসে অনলাইনে টাকা ইনকাম করে বাংলাদেশের মধ্যে বিকাশে পেমেন্ট নিতে। আবার অনেকেই কাজ করে কিন্তু টাকা পাইনা টাকা যদি হয় কিন্তু তুলতে পারে না। এমন অনেকে আছে যারা ইনকাম দিয়ে ঠিক হয় কিন্তু সেখান থেকে টাকা তুলতে পারে না। তাই আমাদেরকে অনলাইন জগতে কাজ করার সময় অবশ্যই সতর্কতার সহিত কাজ করতে হবে। আজকে আমি আপনাদেরকে কিভাবে অনলাইনে কাজ করে বিকাশে পেমেন্ট পাওয়া যায় সেই বিষয়ে সম্পর্কে বিস্তারিত শেয়ার করতে চলেছি তাই আপনি আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়তে পারেন সেখান থেকে আপনি অনেক কিছু শিখতে পারবেন অনলাইন ইনকাম বিষয় সম্পর্কে।

অনলাইন ইনকাম এর জগতে কিছু এমন অ্যাপস রয়েছে যেখানে আপনি বিভিন্ন দেখা এবং এড এ ক্লিক করার মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন। যদিও এই পদ্ধতিটি অনেক সহজ কিন্তু মাঝে মাঝে অ্যাপগুলো ডিস্টাব করে থাকে। যেমন আপনাকে ঠিক হয়ে কাজ করিয়ে নিবি কিন্তু তারা টাকা পেমেন্ট করবে না। আবার এমন অনেক অ্যাপস রয়েছেন যারা টাকা দেয় বা পেমেন্টও করে, তাই আজকে এমন সব অ্যাপস নিয়ে আপনাদের বলবো।

আরো পড়ুনঃ ইউটিউব চ্যানেল কিভাবে খুলবো।

আপনাদের জন্য একটি চমৎকার বিষয় হচ্ছে আমি আপনাদেরকে একটি ইনকাম করার সুযোগ দিব সেটি সবশেষে বলা হবে ইনশাআল্লাহ। আর আপনাদেরকে জানাবো কিভাবে 2022 সালে অনলাইনের মাধ্যমে ইনকাম করে বিকাশে পেমেন্ট নেওয়া যায়। এবং আরো বিস্তারিত জানানোর চেষ্টা করব কিভাবে কোন পদ্ধতি অবলম্বন করলে অনলাইনে টাকা ইনকাম করা যায় এবং বিকাশে পেমেন্ট নেওয়া যায় ইত্যাদি।

মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট ২০২৩

বর্তমানে অনলাইনে আয় এর মধ্যে একটা সেরা মাধ্যম হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করা। এটির এখন প্রায় ফ্রীলান্সিং প্রেমিরা লাখ লাখ টাকা ইনকাম করতেছে। এমনকি অনেকেই মিনিটে 1 হাজার টাকা করে ইনকাম করতেছে নিমিষেই। আর আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে ইনকাম করতে চান তাহলে ফাইবার, আপওয়ার্ক, ফ্রিল্যান্সিং ইত্যাদির মতো বড়-বড় ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে আপনি অনেক কাজ পেয়ে যাবেন। সেখানে গিয়ে একটি অ্যাকাউন্ট খুলে ভেরিফাই করার পর আপনি কাজের জন্য গিগ তৈরি করতে পারবেন। তবে আপনাকে ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ করার আগে কাজ শিখতে হবে যেমনঃ ডিজিটাল মার্কেটিং, গ্রাফিক্স ডিজাইন ইত্যাদি।

See also  পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে পাসপোর্ট চেক | ই পাসপোর্ট চেক

ফ্রিল্যান্সিং কি? অনলাইনে টাকা আয় এর আরেকটি উপায়।

ফ্রীলান্সিং অর্থ হচ্ছে মুক্ত পেশা। অর্থাৎ কোন একটা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বা কারও অধীনে কাজ না করে নিজে ঘরে বসে অনলাইনে কাজ করাকেই মূলত ফ্রীলান্সিং বলে। ফ্রিল্যান্সিং এর মধ্যে আপনি আপনার ইচ্ছে অনুযায়ী কাজ করবেন আপনার টাইম অনুযায়ী কাজ করবেন। কেউ আপনাকে অর্ডার করার ক্ষমতা রাখেনা বা কাজ করা থেকে বিরত রাখতে পারবে না আপনি যত বেশি কাজ করবেন তা তো আপনার ইনকামও বেশি হবে। এখন বর্তমানে অনলাইন জগতে ফ্রিল্যান্সিং এর চাহিদা অনেক বেশি তাই আপনাকে কাজ নিয়ে চিন্তিত হতে হবে না। এমনকি আপনি যদি ফ্রিলান্সিং এর মধ্যে কোন একটা বায়ারের সাথে ভালো পরিচয় হতে পারেন তাহলে তো আর টেনশনই নেই এমনকি আপনি মাসে 500 ডলার ইত্যাদি আরো নির্ধারিত কোন একটা পেমেন্টে প্রতি মাস কাজ করতে পারবে। আশাকরি বুঝতে পেরেছেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে ইনকাম। মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট।

এফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে অনলাইনে ইনকামের আরেকটি নতুন মাধ্যম যেটা দিয়ে কোন মানুষ অনেক টাকা ইনকাম করতেছে। এফিলিয়েট মার্কেটিং অর্থ হচ্ছে কোন একটা কোম্পানির নির্দিষ্ট একটা প্রোডাক্ট বিক্রি করে দিয়ে তাদের থেকে কমিশন নেওয়া। 

সহজ ভাষায় বলতে গেলে বিভিন্ন কোম্পানি যেমনঃ অ্যামাজন, আলিবাবা,দারাজ ইত্যাদির মতো আরও বড় বড় অনলাইন মার্কেটিং কোম্পানিতে থেকে তাদের কাছে একটি এফিলিয়েট একাউন্ট খোলার পর নির্দিষ্ট একটি প্রোডাক্ট বিক্রি করে টাকা কামানো। কালকে যেন দেখা পাই তার জন্য আপনাকে সর্বপ্রথম এই কোম্পানিগুলো তে গিয়ে একটা অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট খুলতে হবে। অনলাইনে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট।

একটি এফিলিয়েট একাউন্ট খোলার পর আপনার নির্দিষ্ট একটি ওয়েবসাইট কিংবা ফেসবুক বা কোন একটি প্লাটফর্ম এর মাধ্যমে তাদের কোন একটা প্রোডাক্ট বিক্রি করবেন আপনার লিঙ্ক থেকে। যার কারণে তারা আপনাকে বড় একটা কমিশন দিবে। মূলত এই ভাবেই অর্থাৎ কোন একটা কোম্পানির প্রোডাক্ট বিক্রি করে ইনকাম করা কে এফিলিয়েট মার্কেটিং বলা হয়।

See also  টাকা ইনকাম করার অ্যাপ ২০২৩ বাংলাদেশ

আরো পড়ুনঃ নগদ একাউন্ট বন্ধ করার পদ্ধতি।

অ্যাপস/Apps এর মাধ্যমে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট।

মোবাইল দিয়ে আপনি খুব সহজেই বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন। তবে এমন অনেক অ্যাপস রয়েছে যেগুলোর সম্পূর্ণ ফেক তারা ঠিকই আপনার কাছ থেকে কাজ করে নিবে কিন্তু তারা পেমেন্ট করা থেকে বিরত থাকবে। তবে এমন কিছু অ্যাপস রয়েছে যেগুলো কাজ করাই ঠিক হয় কিন্তু পেমেন্টও করে। আজকে আমি চিন্তা করেছি এমন অ্যাপস গুলো আপনাদের সাথে শেয়ার করি চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক। তবে আপনি বিভিন্ন Apps এর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন না। আর অবশ্যই কোন একটা অ্যাপস এ কাজ করার সময় সেই অ্যাপ সম্পর্কে আপনার ধারণা থাকাটা খুবই জরুরী।

অনলাইন ইনকাম করার অ্যাপস।

১. পকেট মানি (Pocket money)

বর্তমানে অনলাইন ইনকাম করার সেরা অ্যাপস এর মধ্যে একটি হচ্ছে পকেট মানি। আপনি এই অ্যাপসের মাধ্যমে প্রতিদিন আপনার ডেইলি খরচ ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমানে বাংলাদেশের মধ্যে এই অ্যাপ এ অনেক মানুষ কাজ করে। এবং তার কাজ অনুযায়ী অনেক ইনকাম উপার্জন করতে পারতেছে।

পকেট মানি তে ইনকাম করে যে টাকাগুলো পাবেন সেগুলো আপনি খুব সহজেই ওই দূর করতে পারবেন আশা করি কোন প্রকার প্রতারণার শিকার হবেননা। আর আপনি যদি আইএফসির রিভিউ দেখেন তাহলে খুব সহজেই জেনে ফেলবে এই অ্যাপসটা কেমন লিগ্যাল না নাকি আন লিগ্যাল।

আর আমি এই অ্যাপস থেকে ইনকাম করার জন্য আপনাকে সরাসরি চলে যেতে হবে গুগল প্লে স্টোরে। সেখানে গিয়ে আপনি পকেটমানি লিখলি আপনার সামনে চলে আসবে পকেট মানি অ্যাপস টা। আর আপনি যদি প্লে স্টোরে ফকিং মানে রেটিং দিতেন তাহলে আশা করি 4.2 পাবেন। অনলাইনে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট।

আরো পড়ুনঃ কিভাবে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করা যায়।

See also  How to Watch NBA League Pass on Samsung Smart TV (2024)

২. মেশো অ্যাপ

এর আগেই আমি বলে আসছিলাম এফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে ইনকামের কথা। আর মিশু অ্যাপস হচ্ছে ঠিক তেমনি একটা অ্যাপস যেখান থেকে আপনি এফিলিয়েট মার্কেটিং করে ইনকাম করতে পারবেন। আপনি মিশু অ্যাপস এর মধ্যে বিভিন্ন রকম প্রোডাক্ট পেয়ে যাবেন সেই প্রোডাক্ট গুলো যদি আপনি বিক্রি করে দিতে পারেন তাহলে মাস শেষে আপনাকে একটা আপনার কাজ অনুযায়ী ইনকাম দেবে।

বিভিন্ন ওয়েবসাইট কিংবা অন্য কোন জায়গা থেকে আমি তথ্য পেয়েছি এই অ্যাপস থেকে নাকি প্রতি মাসে অনেক লোক সাত থেকে আট হাজার টাকা পর্যন্ত ইনকাম করে থাকে। আর আপনি এই টাকাগুলো বিভিন্ন ক্রেডিট কার্ড এবং বিভিন্ন ওয়ালেট এর মাধ্যমে উত্তোলন করতে পারবেন।

আর্টিকেল লিখে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট।

আপনি যদি ভালো লেখালিখি করতে পারেন তাহলে খুব সহজেই অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এমনকি আপনি যদি ভালোভাবে নিয়মিত কাজ করেন তাহলে প্রতি মাসে 10 হাজার টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন। তবে আপনাকে অবশ্যই ভালো লেখালেখি করা জানতে হবে এবং শুদ্ধ বাংলা সঠিক শুদ্ধভাবে লিখতে হবে। আর্টিকেল লিখে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট নিতে নিচের পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করুন।

আপনি যদি আর্টিকেল লিখে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করতে চান তাহলে আমার এই আর্টিকেলটি ফলো করতে পারেন। আপনি যদি এরকম একটা নতুন আর্টিকেল কোন ধরনের কপিরাইট ছাড়া আমাকে পাঠিয়ে দিতে পারেন তাহলে আপনার লেখা অনুযায়ী পেমেন্ট করা হবে। 

আর আপনি যদি লেখা পাঠাতে চান তাহলে +8809638040139 এই নাম্বারে কল দিতে পারেন। এটি একটি ব্রিলিয়ান্ট নাম্বার আর আপনার যদি এরকম নাম্বার প্রয়োজন হয় তাহলে ব্রিলিয়ান্ট অ্যাপটি ডাউনলোড করে ভেরিফিকেশন করলেই পেয়ে যাবেন। এই মোবাইল নাম্বারে আপনি যে কোন সিম থেকে কল দিতে পারবেন।

আজকে আমার এই কষ্ট করে লেখা অনলাইনে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট এর আর্টিকেল এ যদি আপনার কোনো না কোনো উপকারে আসে তাহলে আপনার বন্ধুদেরকে অবশ্যই শেয়ার করবেন। কেননা হয়তো আপনার বন্ধু এই লেখাটি পড়ে আপনার মত উপকৃত হতে পারবে। ইনশাআল্লাহ সামনে আরও একটি আর্টিকেল নিয়ে হাজির হব। আর্টিকেলটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

Leave a Comment